April 14, 2013

নিবিড় অন্তরতর বসন্ত এলো প্রাণে

মাস ফেব্রুয়ারী, তারিখ দোসরা। মায়ামীর মনোরম বাতাসে বসন্ত পঞ্চমের  ছোঁয়া লেগেছে, শিউলিগাছটা  অকারণে ফুল বিলোচ্ছে, গিরগিটি লাল গলা ফুলিয়ে গিরগিটিনীকে পটাচ্ছে।

গড়িমসি করে ঘুম থেকে উঠে আবার একটু রেস্ট করছি,  আর ভাবছি ডাম্বলডোর কেন ফিনফিনে পাতলা জোব্বা পরেছে, আর তলায় সুপারম্যানসম নীল ইয়ে, আর এর মধ্যে গ্যানডল্ফ কেন কালো, আর আমি এইরকম খাপছাড়া স্বপ্নই বা দেখি কেন। বেলা হয়েছে ঢের; প্রদীপ্ত চুল-চাঁচা-যন্ত্র দিয়ে কদম ছাঁট দিছে, বাইরে মুখোশ পরা লোকজন ঘাস কাটছে, ফোনে ফাবিওলার অধরা ডাক।

এমন দিনে রেস্টুরেন্টে খেতে হয়।

সে অবশ্য আমরা বাইরে বেশ ঘন ঘনই খাই, নানা কারণে  যেমন - আহ আজ কি দারুন হাওয়া দিচ্ছে, বাইরে খাওয়া যাক। অথবা, বাবা আজ কি টায়ার্ড লাগছে, চল বাইরে খাই। কিম্বা, কাঁচা বাজারের যা দাম, তার চেয়ে বাইরে খেলেই তো হয় - এই সব নানা অজুহাতে আমরা পান্ডা এক্সপ্রেস / লাজীজ / উদিপী ইত্যাদি দোকানদের উন্নতিসাধন করে থাকি। আজও তাই উইকেন্ড উদযাপন করতে আমরা বেরিয়ে পড়লাম, কোকোনাট গ্রোভের উদ্দেশে।

কফি ডিমেরপোচ আলুভাজা ফ্রেঞ্চটোস্ট (তাতে আবার চিনি আর কলার টুকরো দেয়া, সেগুলো সযতনে পরিহার করা হয়)  ইত্যাদি উপাদেয় ব্রাঞ্চ খেয়ে ভার্চুয়াল খড়কে-কাঠি চিবোতে চিবোতে আমরা এদিক ওদিক হাঁটতে  বেরোলাম - অবচেতন মনের ব্যাপার, পা চলে গেল Petco র দিকে। আরো গভীর অবচেতন - সেদিন ওখানে adoption আছে। যাক গে, সেসব তো পরে "what-if " করে দেখা হলো, আপাতত আমরা এগিয়ে চললাম।

কাছে আসতেই "ম্যাও ম্যাও ম্যাও বকম বকম ভৌ ভৌ ভৌ  চিহী" - আমি বললাম " একি, এটা তো Petco! আচ্ছা চল একটু দেখে আসি কি ঘটছে, আর মুসের জন্যে একটা খেলনা নিয়ে যাই" - মুস পড়শীর ৭০ কেজি গ্রেটডেন , আমি তাকে বেবিসিট করি রোজ। 

ঢুকলাম ভেতরে।মেঝের ওপর ছোটো ছোটো জালের বেড়া, তার ভেতরে পুতুল পুতুল চেহারার  ভুলুয়া আর পুষিরা শুয়েবসে আছে, আর চারদিক ঘিরে মানুষ-ছানারা কলরব করছে। বর্ণে গন্ধে শব্দে একেবারে ঘটনার ঘনঘটা। এদিক ওদিক তাকাচ্ছি, এমন সময় চোখ পড়ল একটা সাদা তুলোর বলের ওপর। গুটলি পাকিয়ে শুয়ে আছে, দেড় বিঘত সাইজ হবে। কাছে যেতেই গুটলির ভেতর থেকে একটা মাথা বেরোলো। তাতে জলদস্যুর মতন কালো চোখ-পট্টি, দুটো নীল চোখ মিটমিট করছে, আর একটুখানি গোলাপী জিব কচি দাঁতের ভেতর থেকে উঁকি দিছে। 

শরদিন্দুর শরণ নিয়ে বলতে হয় - মনে হইল সম্মুখের পৃথিবীটা একটুখানি সরিয়া গিয়াছিল, এখন খাপে খাপে মিলিয়া গেল।

"বিংগো" এলো ঘরে। 

6 comments:

  1. বড্ড বড্ড বড্ড ভালো হয়েছে! শরদিন্দুর quote টা একদম মিলে গেছে!
    তোমারা Miami তেই এত বাইরে খাও, New York এলে কি করবে? ভাবতেই ভালো লাগছে!

    ReplyDelete
  2. শেষের দিকটা পড়ে গলাটা একটু ধরেও গেল। :)

    ReplyDelete
  3. ভাগ্যিস নতুন বছরের প্রথম দিনে পড়লাম লেখাটা, যেভাবে মনটা ভরে গেল, তাতে বাকি বছরের দিনগুলো আমার ভাল কাটবে।

    ReplyDelete
  4. ekebare destined to meet! kemon ekta sundar jinisher sange tomra associated hoye gele! amar bhishan pet er sakh, kintu eto travel kori je kothay rekhe jabo seyi duschintate rakhte parina, meye ta boro hoye jacche pet chara, khub kharap lage.

    ReplyDelete
  5. আরও লেখো । এত কম কেন? তোমার লেখা খুব ভালো লাগে ।
    মিঠু

    ReplyDelete

Leave a comment